সার ডিলারের বাড়িতে মধ্যরাতে জোড়া ককটেল বিস্ফোরণ


Online Desk প্রকাশের সময় : ০৭/০২/২০২৪, ১১:১৮ অপরাহ্ণ /
সার ডিলারের বাড়িতে মধ্যরাতে জোড়া ককটেল বিস্ফোরণ
চাঁপাইনবাবগঞ্জে এক সার ডিলারের বাড়ির আঙিনায় মধ্যরাতে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। মঙ্গলবার (০৭ ফেব্রুয়ারী) দিবাগত রাত ১১টা ৪৫ মিনিটের দিকে জেলা শহরের নামোশংকরবাটি বড়িপাড়া এলাকায় সার ডিলার মো. শাহালালের বাড়িতে দুটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে।
মধ্যরাতে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে বড়িপাড়া এলাকায়। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। বাড়ির আঙিনায় ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বিএডিসির সার ডিলার শাহালালের পরিবার ও স্থানীয়রা।
স্থানীয় বাসিন্দা ও প্রতক্ষ্যদর্শী সূত্রে জানা যায়, মুখে কাপড় বাধা অবস্থায় দুটি মোটরসাইকেলে করে এসে বাড়ির মধ্যে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। এসময় শাহালালের বাড়ির দরজায় আঘাত করে দরজা ভাঙার চেষ্টা করলে স্থানীয়রা ককটেলের শব্দে ছুটে আসলে পালিয়ে যায় তারা।
এদিকে, সার ডিলার শাহালাল ও তার পরিবারের অভিযোগ, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গত সোমবার রাতে মসজিদ থেকে এশার নামাজ পড়ে বাসায় আসার সময় হামলা হয় শাহালালের উপর। পরে এনিয়ে সদর মডেল থানায় একটি অভিযোগ দেয়ার কারনে ভয়ভীতি দেখাতে ও অভিযোগ তুলে নিতে বাড়ির মধ্যে ককটেল বিস্ফোরণ করা হয়েছে।
সার ডিলার মো. সাহালাল বলেন, মোহনপুর মৌজায় আমার ২৩০ নম্বর আরএস খতিয়ানে ১৭ কাঠা জমি রয়েছে৷ সেখান থেকে ব্যবসার প্রয়োজনে কিছু জমি বিক্রি করতে গেলে ক্রেতাকে বাধা দেয় একই এলাকার মোসলেম উদ্দিন, মঞ্জুর হোসেন, সেরাজুল ইসলাম, কাবির আলী ও আজাইপুর এলাকার রবিউল ইসলাম। এনিয়ে বিরোধ হলে গত সোমবার রাতে মসজিদ থেকে নামাজ পড়ে আসার সময় আমার উপর হঠাৎ হামলা করে তারা। এতে লাঠিসোঠা দিয়ে ও কিল-ঘুষি লাথি মারলে গুরুতর আহত অবস্থায় জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়।
তিনি আরও বলেন, হামলার শিকার হলে সদর মডেল থানায় একটি অভিযোগ দিলে পুলিশ সরেজমিনে তদন্ত করতে আসে। এরপর থেকেই নানারকম হুমকি ও ভয়ভীতি দেখাতে থাকে তারা। অভিযোগ তুলে নিতে চাপ দেয়। পরবর্তীতে তারাই মধ্যরাতে বাড়ির মধ্যে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায়।
শাহালালের স্ত্রী মোসা. খাইরুন খাতুন বলেন, ককটেল বিস্ফোরণ ও বাড়ির দরজায় আঘাত করার  সময় জরুরি সহায়তা ৯৯৯ এ ফোন দিলেও সুরাহা মেলেনি। সেখান থেকে ওসির ফোন নাম্বার দিলে ওসিকে ঘটনার বিষয়ে বললেও কোন ব্যবস্থা নেননি। আমরা রাতের অন্ধকারে বাড়ির মধ্যে এমন ককটেল বিস্ফোরণের বিচার ও নিরাপত্তা চাই।
জেলা শহরের পাইকোড়তলা এলাকার যুবক মো. সজল জানান, রাতে পিকনিক থেকে বড়িপাড়া সড়ক দিয়ে ফেরার সময় কয়েকজনকে মুখে কাপড় পড়ে দুটি মোটরসাইকেলে এসে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।
শাহালালের নাতী মো. সোহাগ বলেন, আগেরদিন হামলা করেই ক্ষান্ত হয়নি দুষ্কৃতিকারীরা। হামলার শিকার হয়ে আইনের আশ্রয় নেয়ার কারনে তারা বাড়ির মধ্যে আঙিনায় ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন মাধ্যমে হুমকি দিচ্ছে প্রাণনাশের হুমকির। আমরা নিরাপত্তা চাই ও বিচার চাই।
এঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মিন্টু রহমান।